Chanachur

ঘরেই তৈরি মুচমুচে চানাচুর রেসিপি

বাহিরের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের চেয়ে ঘরে তৈরী  করা খাবার সব সময় স্বাস্থ্যসম্মত। কোন প্রকার চানাচুর মেশিন ছাড়া ঘরে বসে দোকানের মত  চানাচুর তৈরী করা যায়। অনেকে মনে করে থাকেন যে, চানাচুর তৈরী করা অনেক কঠিন  কিন্তু না, অল্প উপকরন দিয়ে ঘরে বসে  চানাচুর  তৈরী করা যায়। মেহমানদারিতে নিজের হাতে তৈরী করা চানাচুরেরর কোন জুড়ি নেই তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক মুচমুচে চানাচুর রেসিপি:

মুচমুচে চানাচুর রেসিপির উপকরন

বেসন -২ কাপ, বুটের ডাল – ২ টেবিল চামচ, (৩ ঘন্টার জন্য ভিজিয়ে রাখতে)  কাবলি ডাল – ১ টেবিল চামচ,(৩ ঘন্টার জন্য ভিজিয়ে রাখতে) বাদাম  – ২ টেবিল চামচ, চিড়া – ১/২ কাপ, খেসারি ডাল -১ টেবিল চামচ(৩ ঘন্টা জন্য ভিজিয়ে রাখতে হবে) লবন  – স্বাদমত, হলুদ গুড়া – ১ চামচ, মরিচের গুড়া – ১ চামচ, ( স্বাদমত) , বিট লবন – স্বাদমত , চ্যাট মসলা – ২ টেবিল চামচ। তেল – ভাজার জন্য।

মুচমুচে চানাচুর রেসিপি প্রনালি

প্রথমে একটি বাটিতে অর্ধেকের চেয়ে বেশি বেসন নিয়ে তার মধ্যে স্বাদমত লবন ও হাফ চামচ পরিমান হলুদের গুড়া দিয়ে হাত দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।এখন অল্প অল্প পানি দিয়ে একটি নরম ডো  তৈরি করতে হবে।
এখন অন্য একটি বাটিতে বাকি বেসন নিয়ে তার মধ্যে স্বাদমত লবন ও হলুদের গুড়া দিয়ে একটি পাতলা ব্যাটার তৈরী করে নিতে হবে। এখন একটি কড়াইতে পর্যাপ্ত পরিমাণে তেল দিয়ে তার ভিতরে একটি ছিদ্র যুক্ত ছাকনি নিয়ে পাতলা ব্যাটার দিয়ে ওপরে রেখে দিলে দেখবন তেলের উপর ছোট ছোট বুন্দিয়ার মত তৈরী হচ্ছে। এখন বুন্দিয়া গুলোকে মচমচা করে ভেজে একটি টিস্যুর ওপর তুলে নিতে হবে।
Chanachur recipe
এখন নরম যে ডোটা তৈরী করে রাখা হয়ছে তা একটি কেচাপের বোতল বা নরমাল যেকোন বোতলে নিয়ে একটু মোটা  বা চিকন ছিদ্র করে নিতে হবে। এখন এই তেলের মধ্য পিচিয়ে বোতলটিকে চাপ দিলে ব্যাটার তেল মধ্যে পড়বে। এখন পিচিয়ে বা সোজা করে যেভাবে ইচ্ছে এভাবে বানিয়ে নিলেই হবে। যখন এগুলো ভাজা তখন তুলে টিস্যুর উপর রাখতে হবে।
এখন এই তেলের মধ্য একটি ছ্রিদযুক্ত ছাকনি নিয়ে তার মধ্যে একে একে বাদাম, চিড়া, ডাল ভেজে নিতে হবে। যখন সবগুলো ভাজা হয়ে যাবে তখন একটি বড় বল নিয়ে ভাজা সবকিছু একসাথে মিশিয়ে তার মধ্য স্বাদমত লবন, বিট লবন, চ্যাট মশলা, মরিচের গুড়া দিয়ে হাত দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। মিশানো হয়ে গেলে লবন চেক করে নিতে হবে।তো হয়ে গেল মুচমুচে চানাচুর রেসিপি। এখন পরিবেশন করার পালা।
সংরক্ষণ : যেকোন একটি এয়ার টাইক বক্সে করে রেখে দিতে পারবেন ৪-৫ মাস পর্যস্ত।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সংশ্লিষ্ট আরো পোস্ট